গিগ এর সকল সমস্যা সমাধান এক টিউটোরিয়াল

$একটি গিগ তৈরিতে লক্ষণিয় বিষয়ঃ

আপনারা হয়তো একটি গিগ তৈরি করেন কিন্তু একটি গিগ কে আমরা মনে করে একটি বড় বিজনেস এই গিগ একদিন আমাকে প্রতি মাসে লাখ টাকা এনে দিতে পারে , আপনি যতটুকু বেশি সময় নিয়ে গবেষণা করে গিগ তৈরি করবেন ঠিক ততটুকুই আপনার আউটপুট আসবে । তাহলে কিভাবে গিগ তৈরি করবো ?..

একটি গিগ তৈরি করতে যে সকল বিষয় খেয়াল রাখতে হবে..

১। কম্পিটিটর এনালাইসিস 

২। গিগের জন্য আকর্ষণীয় ইউনিক এসইও ফ্রেন্ডলি টাইটেল

৩। ইউনিক ডেস্ক্রিপশন 

৪। গিগের প্যাকেজ

৫। গিগের ট্যাগ 

৬। গিগের জন্য ছবি ( থাম্বনেইল ) 

৭। গিগের জন্য ভিডিও

৮। T FAQ

৯। গিগ ডেস্ক্রিপশন স্ট্র্যাটিজি ফাইভার সাকসেস

ফাইভার গিগ এ যেসব ডিটেইলস দেয়া যাবে না! আপনার প্রথম গিগ , বা আপনি ঘন্টার পর ঘন্টা সময় লাগিয়ে একটা গিগ বানিয়েছেন। তাই এতেই মনের মাধুরী মিশিয়ে 10 টা Category একটা Gig এ দিয়েই বানিয়েছেন। আমিও আমার প্রথম গিগ ঠিক এভাবেই বানিয়েছিলাম, কিন্তু এখন এসে বুঝি ব্যাপারগুলোয় কি কি ভুল ছিলো । যদিও অনেক ভিডিও দেখেছি , কিন্তু সব থিওরী টাইপ। কেউ সরাসরি বা নিজে করে দেখায় না ।  

$ আপনার গিগ এ কি কি করবেন , এবং কি কি করবেন না...

1. Gig Title & Description এ Irrelevant Word দিবেন না । ( আপনার Main Keyword থাকতে হবে Title আর Description ( 1st Paragraph ) এ আপনার Main Keyword থাকতে হবেই ) 

2। বেশি Highlighter ব্যবহার করবেন না । ( গিগ যেন সহজে পড়ে মেইন কিছু কিছু Word এ ফোকাস যায় তাই হাইলাইট করুন ) 

3। 10 টা আলাদা সার্ভিস একসাথে মেনশন করবেন না । ( একটা গিগ এ একটাই সার্ভিস রাখেন- এর Sub Category , Low Competition Keyword উল্লেখ করতে পারেন ) 

4। গিগ এর প্রথমেই আপনি 10 বছর ধরে গ্রাফিক ডিজাইন করেন ( কিন্তু আপনার গিগ Background Removal এর ) এইসব বলা যাবে না । 

5।অভিজ্ঞতার সাথে যেন আপনার সার্ভিস এর ধরন এর মিল থাকে , যদি BG remove ই করেন 10 বছর তাহলে এখন আপনার বড় বড় কোম্পানির Permanent Client থাকা উচিত ) 

৬। আপনি ২৪ ঘন্টা ই এক্টিভ থাকেন , এটা মিথ্যা কথা । আপনি কি ঘুমান না ? বাথরুম বা গোসল নাহয় বাদ ই দিলাম । ( ঠিক সময় তাই বলবেন নাহলে সময় উল্লেখ করার তেমন প্রয়োজন নেই )

 ৭। 100 % Satisfaction guarantee দিয়েন না , যদি আপনি Expert আর Client Communication Skill ভালো না থাকে । ( এটা অনেক বড় একটা বিষয় , তাই যদি মেইনটেইন করতে পারেন , দিতে পারেন )

 ৮। GIG IMAGE এ বেশি Text ( লিখালিখি ) দিবেন না । ( User Friendly না হলে , সেই ছবি দিয়ে লাভ নেই । বায়ার একজন মানুষ , রোবট না , আর আপনার গিগ এর সবচেয়ে প্রথম জিনিস যা বায়ারের নজরে আসে তাই হল Gig Image )

 ৯। আপনি যেই লেভেল এই থাকেন , Level এর Tag Image গিগ এ দিবেন না । ( লেভেল গেলেই বাঁশ খাবেন ) Personal কোনো লিংক দিবেন না বায়ার বাইরে নেওয়ার জন্য ।

 ১০। সার্ভিস এর বাইরে বেশি কথা দিবেন না । ( সার্ভিস এ কোন প্যাকেজ এ কি কি দিচ্ছেন , order এর আগে বায়ারের কি কি জানা প্রয়োজন শুধু তাই দেন । ) 

১১। প্যাকেজ এ কম Information দিবেন না । ( Word Limit full টাই ব্যবহার করুন )

 ১২। Faq Section ফাঁকা রাখবেন না । ( Order এর আগে বায়ারের যা যা জানা লাগবে দিন )

 ১৩। Gig এক বসায় বানাবেন না । ( সময় নিয়ে রিসার্চ করে বানান । ) 

 ১৪। যেই সার্ভিস এর মার্কেট প্রাইজ 50 , তা আপনি 40 বা 35 এ দিতে পারেন , 5 এ দিবেন না । ( 5 এ দিবেন , 5 এর মত সার্ভিস , আর সেটা খুব ভালো করেই উল্লেখ করে দিবেন গিগ এ )

 ১৫। Social Media Marketing ( AKA Fb / Twitter Spamming ) করা যাবে না । কারণ এসব জায়গায় সেলার বেশি বায়ার থেকে । ( সেলার রা যখন আপনার গিগ View করবে , তখন আপনার Gig এর Bounce Rate বেড়ে যাবে । দেখেবন Click View হচ্ছে Order নাই , Rank যা আছে তাও থাকবে না )

 ১৬। Gig Tags এ Irrelevant জিনিস দিবেন না । ( প্রথম ট্যাগ এ Main Keyword , তারপর Sub - Keywords গুলো দেন )

 ১৭। নীলক্ষেত এর মত ডিজাইন Gig Image এ দিবেন না । ( বায়ারের চোখ আটকায় এমন ইমেজ আর কালার দিবেন )

 ১৮। Gig Image এর সাথে Gig PDF বাদ দিবেন না । ( আপনার সব Portfolio একটা Doc এ নিয়ে add করে PDF করে নেন । ফাইল সাইজ বড় হলে Online Pdf compressor ব্যবহার করেন ।) স্কুল কলেজ বা পরীক্ষায় যেমন , ইচ্ছা মত যেকোনো কিছু লিখে দেন না , ঠিক তেমনি Gig এক বসায় তাড়াহুড়ো করে না বানিয়ে Research করে বানান । কারণ , এটা আপনার Business , তাই পরিপাটি আর প্রফেশনাল রাখুন ।

$গিগ তৈরিতে লক্ষণিয় বিষয়

কিলার গিগ ইমেজে তৈরিতে লক্ষণিয় বিষয় গিগ ইমেজ কতটা ইম্পরট্যান্টে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না । একটি আকর্ষণীও গিগ ইমেজ আপনাকে বায়ার / ক্লায়েন্ট পেতে অনেক সহযোগিতা করবে । আমি একটি উদাহরণের মাধ্যমে ব্যাপারটি সহজ করে দিচ্ছি- ধরুন আপনি youtube এ ঢুকলেন কোন কিছু দেখার জন্যে । এখন আপনি সেই thumbnail এ ক্লিক করবেন যেই ফাইভার সাকসেস | 21 thumbnail এর টাইটেল এবং ইমেজ আপনার ভালো লাগবে।

টাইটেলটি এমন হতে পারে যে , দেখুন মাশরাফি কি করলো সাংবাদিকের সাথে । এর সাথেই ইমেজে মাশরাফির সাথেই এক সাংবাদিকের ইমেজ জুড়ে দেয়া । স্বভাবতই আপনি ওই thumbnail এ ক্লিক করবেন। এছারাও আপনি নিজে যখন রিসার্চের জন্য অন্য কারো গিগ দেখেন তখন কি দেখে একটা গিগে প্রবেশ করেন ? নিশ্চয়ই টাইটেল এবং ইমেজ । ঠিক একইভাবে বায়ার / ক্লায়েন্ট আপনার গিগ ইমেজ দেখে আকর্ষিত হয়ে গিগে প্রবেশ করবে। ভাগ্য ভালো থাকলে অর্ডারও পেয়ে যেতে পারেন।

গিগ ইমেজ তৈরির ক্ষেত্রে ১০ টি গুরুত্তপূর্ণ বিষয় মাথায় রাখতে হবে । Quality গিগের ইমেজ কোয়ালিটি অবশ্যই ভালো হতে হবে । অর্থাৎ কোন রকম pixelated image use করা যাবে নাহ । অনেককেই দেখা যায় গিগের ইমেজ কোয়ালিটির দিকে নজর রাখেন না। এতে করে যেটা হয় , বায়ার আপনার সার্ভিস এর ব্যাপারে সন্দেহ পোষণ করতে পারে।

তাই সতর্কতার সাথে ইমেজের ভালো কোয়ালিটি রাখুন । Copyrights- কপিরাইট ইমেজ অর্থাৎ stock image use করবেন না । ফাইভার terms & condition এ copyright ব্যাপারটি খুব মোটা দাগে বলা আছে । এমনকি copyright image use করার ফলে একাউন্ট ব্যান হতে পারে । সাবধান ! Clickbait - clickbait বলে বোঝায় যে ইমেজের মাঝে কোন ক্লিক সিম্বল / আইকন।

এই ধরেনের clickbait simble use করা যাবে না । Badges আপনি ফাইভারে কত নম্বর সেলার এটা ব্যাজ হিসেবে গিগ ইমেজে ব্যাবহার করা যাবে না । আপনি ফাইভারে কোন পজিশনে রয়েছেন এটা বায়ার আপনার প্রোফাইলে প্রবেশ করলেই দেখতে পায় ।

তাই পিপ ইমেজে এই ধরনের ব্যাজ কখনই ব্যাবহার করা উচিত না । ফাইভার সাকসেস | 22 Avoid over - text- চেষ্টা করবেন গিগ ইমেজ যতটুকু ক্লিন রাখা যায় । অনেককেই দেখা যায় ইমেজের মাঝে অনেক টেক্সট এর ব্যাবহার করেন।

যার কারনে বায়ার কনফিউসড হয়ে যায় অনেক সময় । তাছাড়া গিগের ইম্প্রেশন ভালো হয় না এতে । Density- একটি গিগ ইমেজে অতিরিক্ত কনটেন্ট ব্যাবহার করবেন না । যেমন ধরুন , আপনি লোগো ডিজাইন নিয়ে কাজ করেন।

গিগ ইমেজে ইউনিক একটি লোগো ব্যাবহার করুন । একটি ইমেজে ৪-৫ টা লোগো যুক্ত করবেন না । মুল কথা যতটুকু যায়গা খালি রেখে মিনিমাল ইমেজ তৈরি করা যায় ততটুকুই ভালো। Proportions use the right proportions . অর্থাৎ ইমেজের সঠিক অনুপাত ঠিক রাখুন । এজন্য অবশ্যই ইমেজ সাইজ 690 pixel x 426 pixel হতে হবে । এই রেশিও মেইন্টেইন করে গিগ ইমেজ তৈরি করুন।

Don't reuse image- আপনার যদি একাধিক গিগ থাকে তাহলে একই ইমেজ প্রতিটা গিগে ব্যাবহার করবেন না । Show your real face- ইমেজে যদি আপনি আপনার নিজের ছবি যুক্ত করতে চান তাহলে আপ্ন রিয়েল এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ইমেজ ব্যাবহার করুন ।

$ফাইভার গিগে কি ভিডিও দেওয়া উচিৎ ?

অবশ্যই দেয়া উচিৎ যদি আপনি প্রফেশনালি সেটা উপস্থাপন করতে পারেন তাহলে ক্লায়েন্ট এর মনে আপনার প্রতি পজেটিভ ইমপ্রেশন তৈরি হবে । যদি প্রফেশনাল মানের ভিডিও না বানাতে পারেন তবে ভিডিও না ব্যাবহার করে ইমেজ ব্যাবহার করুন । ভিডিওর জন্য কিছু আইডিয়া শেয়ার করি...

 ১। আপনার কাজ সম্পর্কিত এক্সপ্লানেটরি মোশন ভিডিও ফাইভার সাকসেস |

 ২। নিজের কম্পিউটার সেটাপ এর সামনে বসে নিজেকে উপস্থাপন 

৩। আবার হতে পারে আপনার কাজ নিয়ে একটা ডায়নামিক স্লাইড ভিডিও

 ৪। আপনার কাজের সময়কার ভিডিও- ডিজাইন পেন্সিল স্কেচ থেকে ফাইনালাইজ করা এধরণের নিজের ক্রিয়েটিভিটি কাজে লাগিয়ে বের করে ফেলতে পারেন দারুণ সব আইডিয়া এবং তা দিয়ে দারুণ সব কন্টেন্ট তৈরি করে ফেলতে পারেন।

ভিডিও ক্রিয়েটের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মেনে চলতে হবে ১ ) ভিডিও সর্বনিম্ন ৩০ সেকেন্ড এবং সর্বোচ্চ ৭৫ সেকেন্ড এর হতে পারবে । ২ ) ফাইলের সাইজ অবস্যই 50mb এর মধ্যে হতে হবে । ৩ ) কোনো পার্সোনাল ইনফরমেশন ( ইমেইল , মোবাইল নম্বর etc ) অ্যাড করা যাবেনা । ৪ ) ভিডিও এবং অডিও অবস্যই ভালো কোয়ালিটির হতে হবে । 

৫ ) কোনো ধরণের কপিরাইটেড মেটেরিয়াল ব্যবহার থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকবেন । উপরের বিষয়গুলো মেনে ভিডিও ক্রিয়েট করবেন । ভিডিও অ্যাড করার পর সেটি ফাইভার কর্তৃক রিভিউ করা হবে , সব কিছু সুষ্ঠভাবে ক্রিয়েট করা হয়েছে হলে সেটি এপ্রুভ করা হবে ।

$গিগের টাইটেলে কি দেন বা কিভাবে দেন ?

 আপনি যদি লোগো ডিজাইন নিয়ে কাজ করে তাহলে নিচের উদাহরণ - টা দেখেন । -- > I will design a pixel perfect and super eye catchy business logo . কি সেই হইছে তাইনা -- > ঘোড়ার ডিম হয়েছে । আপনার কিওয়ার্ড কি #Business_logo ? তাহলে এটা সবার শেষে দিচ্ছেন কেন ? Ranking ফ্যাক্টরের সর্ব প্রথম এবং প্রধান শর্তই হচ্ছে তোমার মেইন ফোকাস কিওয়ার্ড টাইটেলের শুরুতে থাকবে যদি না পারো তাহলে যতটা সম্ভব শুরুতে দাও ।

 বিঃদ্রঃ- এইটা আমার কথা না এইটা এসইও এর কথা এইটা সার্চ ইঞ্জিন অথবা প্রত্যেকটা বড় বড় ওয়েবসাইটের নিজস্ব এলগোরিদম / Ranking ফ্যাক্টর এর কথা । বিজনেস লোগো এইটা আপনার কিওয়ার্ড আর আপনি এইটাই দিছেন সবার পিছনে।

আপনার মাইন্ ফোকাস কিওয়ার্ড বা আপনি যে বিষয়ে স্কীলড বা যে বিষয় নিয়ে কাজ করেন ওই মূল বিষয়টাই র্যাংকিংয়ে সর্বনিম্ন গুরুত্ব পাবে জাস্ট টাইটেলের সবার পিছনে থাকার কারণে । আর আপনি বলবেন অনেক কিছু করেছি গিগ র্যাংকিং পায়না । 

পাবে কিভাবে আপনার টাইটেল অনুযায়ী তো ফোকাস কিওয়ার্ড র্যাংকিং পাচ্ছেনা উল্টা অযাচিত বিষয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে যেমনঃ- Pixel perfect বা super eye catchy এই কিওয়ার্ড গুলা। আমি লোগো ডিজাইনার না আমি যদি টাইটেল লিখি তাহলে লিখব এইভাবে।

-- > I will design a business logo that's super eye catchy and pixel perfect . ফাইভার সাকসেস | 25 আমি যতটা সম্ভব আমার ফোকাস কিওয়ার্ড সামনে নিয়ে এসেছি । এর বেশি পারিনাই কারণ ওই I will কথাটা ফাইবারের ডিফল্ট এই জন্য । I will design modern , minimalist , custom logo ( keyword : Modern logo , Minimalist Logo , Custom logo , Logo Design )

আজকে এই পরযন্ত টিউটোরিয়াল টি ভালো লাগলে কমেন্ট করে জানাবেন।আপনাদের কোনো  সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন, ধন্যবাদ। 

আরো পড়ুন..

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles
Recent Articles
Jul 23, 2022, 12:47 PM - TASRIF SIDDIQI