বন্যার কারনে এসএসসি পরীক্ষা স্থগিত করলো শিক্ষা মন্ত্রনালয়

দেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় সব বোর্ডে রবিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করেছে সরকার। শুক্রবার সকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

মন্ত্রণালয় পরে আপডেট পরীক্ষার সময়সূচী প্রকাশ করবে। সিলেট, সুনামগঞ্জ ও রংপুরের হাজার হাজার মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সিলেট ও ​​সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকদের মতে, সিলেট জেলার পাঁচটি উপজেলা- সিলেট সদর, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট এবং সুনামগঞ্জের ছাতক, দোয়ারাবাজার ও সুনামগঞ্জ সদর- তিনটি উপজেলা দ্বিতীয় দফা বন্যায় সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী জানান, আগামী ২০ জুন পর্যন্ত সিলেট ও ​​সুনামগঞ্জে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় জেলায় আগামী রোববার থেকে সারাদেশে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে আলোচনা হয়। সিলেট আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী জানান, ২০শে জুন পর্যন্ত সিলেট ও ​​সুনামগঞ্জে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

এছাড়া ভারতের চেরাপুঞ্জি ও মেঘালয়েও মুষলধারে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সিলেট মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের সচিব কবির আহমেদ বলেন, বন্যার পানিতে বোর্ডের আওতাধীন কয়েকটি পরীক্ষা কেন্দ্র প্লাবিত হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ মজিবুর রহমান ও সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন বোর্ডের চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করেন।

পরে তারা সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা সচিবকে অবহিত করেন। শুক্রবার এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিতে পারে বলে জানিয়েছেন বোর্ড সচিব।

দুই জেলার জেলা প্রশাসক সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় দফা বন্যায় সিলেট জেলার পাঁচটি উপজেলা- সিলেট সদর, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট এবং সুনামগঞ্জের ছাতক, দোয়ারাবাজার ও সুনামগঞ্জ সদর- তিনটি উপজেলা সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে।

এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মোট 20,21,006 শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে, যা 2021 সালের তুলনায় 2, 21,037 কম। যাইহোক, কোভিড প্রাদুর্ভাবের পর, গত বছর 22,27,113 পরীক্ষার্থী একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল; যা আগের বছরের তুলনায় ১,৭৯,৩৩৪ বেশি।

রোববার ঢাকায় এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে আইনশৃঙ্খলা সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন। শিক্ষামন্ত্রীর মতে, এ বছর পরীক্ষার্থী কমলেও পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা বেড়েছে।

এ বছর মোট 3,790টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে যা 2021 সালের তুলনায় 111টি বেশি। দীপু মনি বলেন, গত বছরের তুলনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বেড়েছে ৫৫৬টি। এ বছর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মোট ২৯ হাজার ৫৯১টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবে।

তিনি আরও বলেন, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে ১৯ জুন। মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে 10,09,511 জন ছাত্র এবং 10,12,357 জন ছাত্রী৷ নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন শিক্ষার্থী।

এছাড়া দাখিলে ২ লাখ ৬৮ হাজার এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৬২ জন শিক্ষার্থী অংশ নেবে। বিদেশে আটটি কেন্দ্রে মোট ৩৬ জন এসএসসি পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা যা 25 জুন নির্ধারিত ছিল, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জন্য 24 জুন নির্ধারণ করা হয়েছে।

রোববার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এ তথ্য জানান। শনিবার প্রকাশিত রুটিন অনুযায়ী ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ২৫ জুন।

এদিকে মন্ত্রী আরও বলেন, পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১৫ জুন থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

শনিবার ঢাকা, রাজশাহী, কুমিল্লা, যশোর, চট্টগ্রাম, বরিশাল, সিলেট, দিনাজপুর ও ময়মনসিংহ বোর্ডের রুটিন প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। তবে এসএসসি সমমানের দাখিল পরীক্ষা বা কারিগরি পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হয়নি।

সরকার এসএসসি, এইচএসসি এবং তাদের সমমানের পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করেছে। সোমবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে,

এসএসসি পরীক্ষা সম্ভবত 19 জুন এবং এইচএসসি পরীক্ষা 22 আগস্ট শুরু হবে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীরা 13 এপ্রিল থেকে অনলাইনে এসএসসি পরীক্ষার জন্য তাদের ফর্ম পূরণ করতে পারবে।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এবারের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা সংকুচিত সিলেবাসে অনুষ্ঠিত হবে।

গত বছর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা হয় যথাক্রমে নভেম্বর ও ডিসেম্বরে। সাধারণত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ফেব্রুয়ারিতে এবং এইচএসসি এপ্রিল মাসে হয়।

সেই সময়ে কোভিড -১৯ সংক্রমণের বৃদ্ধির কারণে সরকার পরীক্ষা স্থগিত করেছিল। পরীক্ষার সময়কাল সংক্ষিপ্ত করার জন্য কম নম্বর সহ গ্রুপ বিষয়গুলিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

 

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles
Recent Articles
Jul 23, 2022, 12:47 PM - TASRIF SIDDIQI